fbpx
You are here
Home > অন্যান্য > ব্যাট-বল হাতে মাঠে নামছেন সাংসদেরা!

ব্যাট-বল হাতে মাঠে নামছেন সাংসদেরা!

ব্যাট-বল হাতে মাঠে নামছেন সাংসদেরা!

২০১৯ ক্রিকেট বিশ্বকাপ চলছে ইংল্যান্ডে। তবে গ্রুপ রাউন্ডের গন্ডী না পেরুতে পেরে দেশে ফিরে এসেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। কিন্তু আবার ক্রিকেট বিশ্বকাপের উদ্দেশ্যে মাঠে নামছে বাংলাদেশ দল। জ্বী হ্যা! ভুল পড়েননি! সত্যিই বিশ্বকাপে মাঠে নামছে বাংলাদেশ দল। তবে এই বিশ্বকাপটা একটু অন্য ধরণের। বেশ কয়েকটি দেশের সাংসদদের নিয়ে গঠিত নিজ নিজ দেশের দল নিয়ে আয়োজিত হচ্ছে এই ‘আন্তসংসদীয় ক্রিকেট বিশ্বকাপ’।

আজ থেকে শুরু হচ্ছে এই অভিনব বিশ্বকাপ। প্রথম দিনই পাকিস্তানের বিপক্ষে মাঠে নামবে বাংলাদেশ দল। গ্রুপ পর্বের ম্যাচ গুলো ১৫ ওভারের হলেও সেমিফাইনাল ও ফাইনাল অনুষ্ঠিত হবে টি-টোয়েন্টির আদলে। টুর্নামেন্টে বাংলাদেশকে নেতৃত্ব দেবেন বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের প্রথম টেস্ট অধিনায়ক নাঈমুর রহমান দুর্জয়। এদিকে সাংসদের দায়িত্বে থাকায় টুর্নামেন্টে খেলার সুযোগ পাচ্ছেন বর্তমান বাংলাদেশ দলের ওডিআই অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজাও। টুর্নামেন্টেটি উদ্ভাবন করেছেন ব্রিটেনের সংসদ সদস্য ক্রিস হিটন হ্যারিস। এ ব্যাপারে রয়টার্সকে তিনি জানান, “গত শীতের মৌসুমে অস্ট্রেলীয় সংসদ সদস্যদের সঙ্গে একটি ম্যাচ খেলার সময়ই এ টুর্নামেন্টের ধারণা মাথায় আসে আমার।”

‘আন্তসংসদীয় ক্রিকেট বিশ্বকাপ’ নামক এই টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণ করছে মোট আটটি দেশ। স্বাগতিক ইংল্যান্ড সহ বাকি দেশগুলো হলো বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান, অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড, দক্ষিণ আফ্রিকা ও আফগানিস্তান। তিন দিন ব্যাপী এই টুর্নামেন্টের ফাইনাল অনুষ্ঠিত হবে ১২ জুলাই। অংশগ্রহণকারী দেশ গুলোর মধ্যে পারস্পরিক সম্প্রীতি বাড়ানোর লক্ষ্যে আয়োজিত এই টুর্নামেন্ট সম্পর্কে হিটন হ্যারিস আরও জানান, “মানুষকে আয়েশ করার সুযোগ দেওয়ার দারুণ একটি উপায় হলো ক্রিকেট। কারণ এটি দেখতে দেখতে কয়েক ঘণ্টা একসঙ্গে সময় কাটানো যায়। ক্রিকেটের সুবাদে মানুষ একে অন্যের কাছাকাছি আসতে পারে, এতে করে একজনের প্রতি অপরজনের ভালোবাসা বাড়ে, সম্পর্কের উন্নতি হয়। প্রথাগত উপায়ে সম্পর্ক উন্নতি করার চেয়ে এটি অনেক ভালো পদ্ধতি।”

অংশগ্রহণকারী দেশ গুলোর আইনপ্রণেতাদের সাথে সাথে দেখা যাবে সাবেক অনেক ক্রিকেটারদেরও যারা বর্তমানে সাংসদের দায়িত্ব পালন করছেন। ইংল্যান্ড দলে দেখা যেতে পারে বিরোধী দল লেবার পার্টির নেতা জেরেমি করবিনকে। এ ছাড়া পাকিস্তানের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ও বিশ্বকাপজয়ী সাবেক অধিনায়ক ইমরান খানকেও খেলতে দেখা যেতে পারে বলে জানিয়েছেন হিটন হ্যারিস। ১২ জুলাই টুর্নামেন্টের ফাইনাল শেষ করার পর অংশগ্রহণকারী দেশগুলোর সংসদ সদস্যরা সুযোগ পাবেন ১৪ জুলাই থেরেসা মের সাথে বসে ২০১৯ ক্রিকেট বিশ্বকাপের ফাইনাল দেখার।

বাংলাদেশ পার্লামেন্টারি ক্রিকেট দলঃ
নাঈমুর রহমান দুর্জয় (অধিনায়ক), জুনায়েদ আহমেদ পলক, নাহিম রাজ্জাক, আনোয়ারুল আবেদিন খান, মো. সানোয়ার হোসেন, মো. আনোয়ারুল আজিম, নুরুন্নবি চৌধুরী, মজিবুর রহমান চৌধুরী নিক্সন, ফাহমি গোলন্দাজ বাবেল, জুয়েল আরেং, মো. শফিউল ইসলাম শিমুল, মাশরাফি বিন মুর্তজা, শেখ তন্ময়, মো. আয়েন উদ্দিন, শামিম পাটোয়ারি, আহসান আবদেলুর রহমান, ছোট মনির।

অতিরিক্ত খেলোয়াড়ঃ নসরুল হামিদ বিপু, মোহাম্মদ শাহরিয়ার আলম, মো. জাহিদ হাসান রাসেল, নাজমুল হাসান, মহিবুল হাসান চৌধুরী, বদরুদ্দোজা মো. ফরহাদ হোসেন, শামীম হায়দার পাটোয়ারি, আবদুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকব।

ছবিঃ ইন্টারনেট থেকে সংগৃহীত

উপরে